উদ্বোধনের অপেক্ষায় ভূমিহীনদের জন্য নির্মিত ৬০ ঘর

20
রহমত উল্লাহ ৭৩১ টেকনাফ:
মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে টেকনাফে ভূমি ও গৃহহীন ২২৯ পরিবারের জন্য ঘর তৈরির কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। এখন শুধু অপেক্ষা সেগুলোর উদ্বোধনের।
উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, কাল উপকারভোগীদের ৬০ টি ঘর বুঝিয়ে দেয়া হবে কাল শনিবার (২৩ জানুয়ারি)। টেকনাফ উপজেলা মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন।
নতুন ঘরের অপেক্ষার প্রহর গুনছে গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারগুলো। বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়ানো মানুষগুলো জায়গাসহ নতুন ঘর পাবে এমন আনন্দে অনেকেই আত্মহারা। দ্রুত সময়ের মধ্যে ঘর নির্মাণ সম্পন্ন করার জন্য বিরামহীন কাজ করে যাচ্ছে উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।
“আশ্রয়নের অধিকার-শেখ হাসিনার উপহার এই স্লোগান নিয়ে আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের আওতায় টেকনাফ উপজেলায় ২২৯টি ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। এর মধ্যে ৫০টি ঘর নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছে কাল ৬০ টি ঘর বুঝিয়ে দেওয়া হচ্ছে। অবশিষ্ট ঘরগুলো খুব অল্প সময়ের মধ্যে নির্মাণ কাজ শেষ হবে বলে জানিয়েছেন উপজেলা প্রশাসন।
উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, এই প্রকল্পের আওতায় ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা ব্যয়ে প্রতিটি বাড়ি নির্মাণ করা হবে। ৪৩৫ বর্গফুটের প্রতিটি ঘরে রয়েছে দুটি বেড রুম, ঘর ও আশপাশের জমি মিলিয়ে দুই শতক জমি দেওয়া হবে ভূমি ও গৃহহীন প্রতিটি পরিবারকে। টিনসেডের এই ঘরে একটি পরিবার স্বাচ্ছন্দে বসবাস করতে পারবে।
টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.সাইফুল ইসলাম জানান, আমরা সরকারের খাস জমিতে ভূমি ও গৃহহীন হতদরিদ্রদের জন্য
টেকনাফ উপজেলায় প্রকৃত গৃহহীনদের জন্য ২২৯টি বাড়ি নির্মাণের জন্য সরকারিভাবে ৩ কোটি ৯১ লাখ ৫৯হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। ২ কক্ষবিশিষ্ট প্রতিটি বাড়ির জন্য একটি শোবার ঘর, একটি রান্নার ঘর ও করিডোরসহ বাথরুম নির্মাণে ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা। কাজের মান যেন ঠিক থাকে সেজন্য সার্বক্ষণিক তদারকি করা হচ্ছে।
তিনি আরো বলেন, ঘর প্রদানের জন্য উপকারভোগী নির্বাচনের ক্ষেত্রেও আমরা সঠিকভাবে যাচাই বাছাই করেছি। যারা প্রকৃত ভূমিহীন তারাই এই সুবিধার আওতায় এসেছেন। কাল তাদের মাঝে ঘরের দলিল ও চাবি হস্তান্তর করা হবে।