জোড়াদহে এসডিএফের প্রকল্প পরিচিতিমূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

51
এস. এম. শফিক, যশোর (৭১৮) প্রতিনিধি:
ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলার ০২ নং জোড়াদহ ইউনিয়নে সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন (এসডিএফ) কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন “রেজিলিয়েন্স এন্ট্রাপ্রেনিওরশীপ এন্ড লাইভলিহুড ইমপ্রুভমেন্ট (আরইএলআই) প্রকল্পের প্রকল্প পরিচিতিমূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ ২৪ মার্চ, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ তারিখে ইউনিয়ন পরিষদ সম্মেলন কক্ষে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। প্রকল্পের জেলা ব্যবস্থাপক কৃষিবিদ কাজী হাসানুজ্জামানের সভাপতিত্বে উক্ত কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ০২ নং জোড়াদহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: জাহিদুল ইসলাম (বাবু মিয়া) ।
সভাপতি তার সূচনা বক্তব্যের মাধ্যমে সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন (এসডিএফ) এর আরইএলআই প্রকল্পের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও প্রকল্পের বিভিন্ন কর্মকান্ড সংক্ষিপ্তসারে তুলে ধরে বলেন, এসডিএফ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয়ের অধীনে একটি অলাভজনক ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান হিসাবে ২০০১ সাল থেকে কাজ করে যাচ্ছে। এ সংস্থাটি প্রতিষ্ঠার সূচনালগ্ন থেকে শুরু করে অদ্যবধি গ্রামীণ দরিদ্র ও অতিদরিদ্র জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। এসডিএফের রূপকল্প হলো “টেকসই উন্নয়ন ও নারীর ক্ষমতায়নের মাধ্যমে দারিদ্র দূরীকরণ”।
সংস্থার জোড়াদহ ক্লাস্টারের ক্লাস্টার অফিসার এস. এম. শফিকুল ইসলামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত উক্ত কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন , অসীম কুমার সাহা, জেলা কর্মকর্তা, মো: হুমায়ুন কবির, জেলা কর্মকর্তা, এসডিএফ, ঝিনাইদহ।
প্রধান অতিথি বাবু মিয়া বলেন, সরকারি প্রতিষ্ঠান হিসাবে আমরা এসডিএফের সামগ্রিক কর্মকান্ডে খুশি এবং আমার ইউনিয়নে কাজের ক্ষেত্রে ইউনিয়ন পরিষদ তথা আমাদের সামগ্রিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত এ পরিচিতিমূলক কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন (এসডিএফ) এর জেলা ব্যবস্থাপক কৃষিবিদ কাজী হাসানুজ্জামান। সংস্থার পক্ষে আরো উপস্থিত ছিলেন ক্লাস্টার ফ্যাসিলিটেটর মোঃ রবিউল ইসলাম।
উল্লেখ্য যে, সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন (এসডিএফ) ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত সোনার বাংলা গড়ার অভীষ্ট লক্ষ্য অর্জনে বাংলাদেশ সরকারের আর্থিক সহায়তায় দরিদ্র ও অতিদরিদ্র জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে গতানুগতিক প্রক্রিয়ার বাইরে ব্যতিক্রমী উদ্ভাবন “কমিউনিটি চালিত উন্নয়ন (সিডিডি)” কৌশল প্রয়োগ করে সারাদেশের ২০ টি জেলায় এ প্রকল্পের মাধ্যমে দারিদ্র বিমোচন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে চলেছে। কর্মশালায় সকল ইউপি সদস্য, ইউনিয়ন পর্যায়ের বিভিন্ন সরকারি/বেসরকারি অফিসের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণমাধ্যম প্রতিনিধিসহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার ৩৫ জন অংশগ্রহণ করে।