সারাদেশে সতর্ক অবস্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী

5

সম্প্রতি হেফাজতের তাণ্ডবের ঘটনার মামলায় একের পর এক কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতাদের গ্রেফতার করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। সবশেষ রবিবার (১৮ এপ্রিল) সংগঠনটির কেন্দ্রীয় যুগ্ম-মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মামুনুল হককে গ্রেফতার করা হয়।

হেফাজত নেতাদের গ্রেফতার ইস্যুকে কেন্দ্র করে কেউ যাতে নাশকতা করতে না পারে এজন্য রাজধানীসহ সারাদেশে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে পুলিশ। বিশেষ করে মতিঝিল, পল্টন ও মোহাম্মদপুর থানা এলাকায় কঠোর নিরাপত্তা নেয়া হয়েছে। বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে নেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা। ইতোমধ্যে চট্টগ্রামসহ হেফাজত অধ্যুষিত এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ অবস্থান নিয়েছে।

এছাড়া রাজধানীর বিভিন্ন থানা ছাড়াও মসজিদ, মাদরাসা ও পাড়া-মহল্লায় পুলিশি নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। বিশেষ করে মামুনুলকে গ্রেফতারে পর রাজধানীর মোহাম্মদপুরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। গ্রেফতারের আগে মোহাম্মদপুরে দুই শতাধিক পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

পুলিশের একাধিক সূত্রে জানা যায়, সকালে সব এসপি ও রেঞ্জের ডিআইজিকে স্ব-স্ব জেলার আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত সতর্ক অবস্থানে থাকতে বলা হয়েছে। কেউ যাতে কোনোভাবেই অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটাতে না পারে, মানুষ ও সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি না করতে পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে বলা হয়েছে। প্রয়োজনে আইন-শৃঙ্খলা বিনষ্টকারীদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ডিএমপির একাধিক থানার ওসি জানান, রাজধানীর বিভিন্ন থানায় পুলিশ সদস্য বাড়ানো হয়েছে। অনেক থানার প্রধান ফটকে ভারী অস্ত্রসহ পুলিশ সদস্যরা ডিউটি করছেন। তবে যেসব থানায় ভারী অস্ত্র বসানো হয়নি, তাদের প্রধান ফটকে অস্ত্রসহ লোকবল বাড়াতে বলা হয়েছে।

তাছাড়া রাস্তায় বা পাড়া-মহল্লায় চেকপোস্টে পুলিশি তল্লাশির পাশাপাশি বিশেষ নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। মসজিদ, মাদরাসায় পুলিশের গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানোর পাশাপাশি পুলিশের কোনো সদস্য যাতে একা একা ডিউটি না করেন বা বাইরে একা না ঘোরাফেরা করেন সে বিষয় খেয়াল রাখতে বলা হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন দুই কর্মকর্তা জানান, আগে থেকেই জেলাজুড়ে বাড়তি নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হয়েছে। টহল পুলিশ বাড়ানোর পাশাপাশি কাউকে সন্দেহজনক মনে হলে তল্লাশি করা হচ্ছে। শুধু মামুনুল হকের গ্রেফতারকে কেন্দ্র করেই এই নিরাপত্তা বাড়ানো হয়নি। আগেই সতর্ক অবস্থানে থাকতে পুলিশ সদরদফতর থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল।

এর আগে, দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটের দিকে মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া মাদরাসা থেকে মাওলানা মামুনুল হককে গ্রেফতার করা হয়। বেশ কিছুদিন ধরে তিনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের নজরদারিতে ছিলেন।

গ্রেফতারের পর দুপুর পৌনে ২টার দিকে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. হারুন-অর-রশিদ।

তিনি বলেন, ২০২০ সালের মোহাম্মদপুর থানার একটি ভাঙচুর ও নাশকতার মামলার তদন্ত চলছিল। তদন্তে হেফাজত নেতা মামুনুলের সম্পৃক্ততার বিষয়টি সুস্পষ্ট হওয়ায় আমরা তাকে গ্রেফতার করেছি। এছাড়া দেশের বিভিন্ন স্থানে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে, তা আপনারা সবাই জানেন।

এক প্রশ্নের জবাবে ডিসি হারুন বলেন, জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, হাটহাজারীর ঘটনার পর থেকেই তিনি নজরদারিতে ছিলেন। সবকিছু মিলিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে আপাতত মোহাম্মদপুর থানার মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

তাকে আদালতে হাজির করার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, আগামীকাল সোমবার (১৯ এপ্রিল) তাকে আদালতে হাজির করা হবে। তবে রিমান্ড চাওয়া হবে কি-না তা ঊর্ধ্বতনদের সঙ্গে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।