কুড়িগ্রামের চিলমারীতে গুড়িয়ে দেয়া হলো অবৈধ ড্রেজার মেশিন

19
কুড়িগ্রামের চিলমারীতে খালে ড্রেজার বসিয়ে বালু বিক্রি শিরোনামে বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে সেই ড্রেজার মেশিন।
জানা গেছে,শনিবার বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকায় চিলমারীতে ড্রেজার বসিয়ে বালু বিক্রি সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশ হলে ওই দিনই তা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দৃষ্টিগোছর হয়। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো.মাহবুবুর রহমান তাৎক্ষনিক সহকারী কমিশনার(ভূমি) মো.গোলাম ফেরদৌসকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য নির্দেশ প্রদান করেন। দুপুরে সহকারী কমিশনার(ভূমি)মো.গোলাম ফেরদৌস রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের কোদাল ধোওয়া ব্রীজের পশ্চিম পাশ্বে ৫টি ও পূর্ব পাশ্বে একটি মিলে মোট ৬টি ড্রেজার মেশিন ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে ভেঙ্গে ফেলেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, চিলমারী মডেল থানার ওসি তদন্ত প্রাণ কৃষ্ণসহ থানা পুলিশ এবং এলাকাবাসী।
উল্লেখ্য,কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলাধীন রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের কোদাল ধোওয়া ব্রীজের নিচ দিয়ে প্রবাহিত মাগুরা খালটি পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাধ্যমে খনন করে দুই পাড় সংস্কারের কাজ চলমান রয়েছে। খননের সময় পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষের সামনে ঠিকাদারের যোগসাজশে খালে ড্রেজার বসিয়ে মাটি কাটে প্রভাবশালীরা।এর পর থেকেই ড্রেজার মেশিন বসিয়ে ওই খাল থেকে নিয়মিত মাটি/বালু উত্তোলন করে যাচ্ছে একটি বালু মহল।প্রভাব খাটিয়ে এলাকাসীর কথায় কর্ণপাত না করে অবৈধভাবে ড্রেজার বসিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বালু ও মাটি বিক্রি করে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা।আইনকে তোয়াক্কা না করে বালু উত্তোলন করায় দু’পাশের পাড়সহ সাধারন মানুষের কৃষি জমি ভেঙ্গে যাচ্ছে ওই খালে। হুমকির মুখে রয়েছে তিনটি বসতবাড়ীসহ হাজার হাজার একর আবাদী জমি।নিজেদের জমির ক্ষতি হচ্ছে দেখেও প্রভাবশালীদের ভয়ে মুখ খুলতে পারছেনা অসহায় কৃষকরা। মুখ খুলে কোথাও কথা বললেই হুমকি আসছে বলেও জানান স্থানীয়রা। দীর্ঘদিন থেকে অবৈধ ভাবে বালু বিক্রির মহোৎসব চললেও অজ্ঞাত কারনে নিরব ভুমিকা পালন করছে স্থানীয় প্রশাসন ও পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ। এমন সংবাদটি প্রকাশ হলে প্রশাসনের টনক নড়ে এবং প্রশাসন ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে ৬টি ড্রেজার মেশিন গুড়িয়ে দেয়।