বঙ্গবন্ধু হত্যায় দলের ভেতরে-বাইরে ষড়যন্ত্র হয়: প্রধানমন্ত্রী

5

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার জন্য অনেক আগে থেকেই দলের ভেতরে ও বাইরে থেকে ষড়যন্ত্র চলছিল বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতির পিতার ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন। তিনি বলেন, জিয়াউর রহমানের অবৈধ ক্ষমতা দখলের পর থেকে দেশে রক্তপাত ও হত্যার রাজনীতি শুরু হয়। আর, খালেদা জিয়া সে ধারা অব্যাহত রাখেন।

বঙ্গবন্ধুর ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির আলোচনা সভা। এতে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, স্বাধীনতার আদর্শ ও লক্ষ্যকে ধ্বংস করতেই স্বাধীনতাবিরোধীরা ১৫ই আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে। মুক্তিযুদ্ধের পর দেশ গঠনে বঙ্গবন্ধুর পাশে কেউ দাঁড়ায়নি মন্তব্য করে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর জনপ্রিয়তা কমাতে অনেকে অপপ্রচারও চালায়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর খুনীরা নিজেরাই স্বীকার করেছে জিয়াউর রহমান তাদের সঙ্গে ছিলেন। পরে, সেই খুনীদের সাথে নিয়েই জিয়াউর রহমান ক্ষমতা দখল করে দেশে ও বিদেশে তাদের পুনর্বাসন করেন। একই সময় জিয়া বেছে বেছে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সেনা অফিসারদের হত্যা করেন বলেও মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা।

২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি-জামাত জোট সরকারের মদদেই এই হামলা হয়। বিএনপিই দেশে হত্যার রাজনীতি শুরু করে বলেও অভিযোগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

এর আগে অনুষ্ঠানে মুক্তির মহানায়ক শিরোনামে চিত্রকর্ম ও আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।