ডোমারে স্বাস্থ্য বিধি মেনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে পাঠদান শুরু ক্লাসে ফিরতে পেরে খুশি শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা

34
সুমন রেয়াজী,আইডি ৪৪২, ডোমার(নীলফামারী) প্রতিনিধি : নীলফামারীর ডোমারে টানা প্রায় দেড় বছর ছুটির পরে শিক্ষার্থীরা ফিরেছে বিদ্যালয়ে। হৈ চৈ আর উল্লাসে মেতে উঠেছে স্কুল-কলেজ ও মাদরাসা গুলোর শিক্ষার্থীরা। দীর্ঘদিন পর অভিভাবকদের মাঝেও ফিরে এসেছে স্বস্তি। রোববার (১২-সেপ্টেম্বর) নীলফামারীর ডোমার উপজেলার বিভিন্ন স্কুল-কলেজ ঘুরে দেখা যায়, দীর্ঘ ছুটির পর সকাল সকাল বাড়ি থেকে বেরিয়ে কে কার আগে নিজ নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রবেশ করবে এই প্রতিযোগিতা লেগে ছিল শিক্ষার্থীদের মধ্যে। প্রিয় শিক্ষক-শিক্ষিকাদের ফুল দিয়ে বরণ করছেন ছাত্র-ছাত্রীরা। উপজেলা প্রশাসন ও শিক্ষা কর্মকর্তারাও সকাল থেকে ছুটেছেন বিভিন্ন স্কুল কলেজের পরিবেশ দেখতে। ডোমার সরকারি ডিগ্রি কলেজ’র একাদশ শ্রেণীর ছাত্র আমানতশাহ,ও মিলন জানায়, ক্লাস ১০ টায় শুরু হলেও অনেকদিন পর কলেজ খোলায় ৯ টার সময় চলে এসেছি। এতদিন পর প্রিয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এসে স্যার, ম্যাডাম আর বন্ধুদের দেখে ভীষণ ভালো লাগছে। ঘরে বসেই স্কুল জীবনের শেষ সময়টুকু পার করতে হয়েছে।
ডোমারের উত্তর হরিণচড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক উম্মে ছুন্না শাম্মি বলেন, ‘শিক্ষকতা জীবনে এমন দীর্ঘ সময় প্রিয় শিক্ষার্থীদের না দেখে থাকার কোনো রেকর্ড নেই। তাই সকালেই ইস্কুলে এসে বসে ছিলাম তাদের দেখার অপেক্ষায়। ছাত্র-ছাত্রীদের দেখে মনটা ভরে গেছে। উপজেলা শিক্ষা অফিসার আমির হোসেন বলেন, সকাল থেকে বিভিন্ন বিদ্যালয় পরিদর্শন করে দেখতে পেয়েছি বিদ্যালয় গুলােতে পরিপূর্ণ স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত হয়েছেন। প্রথমদিনে ডোমার উপজেলার প্রাথমিকের দশ হাজার ৮শত ৯০ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে দুই শিফটে ৮ হাজার ১শত ৯৪ জন শিক্ষার্থী উপস্থিতি রয়েছে। পাংগা হাজী নছিম উদ্দিন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দুটি বাচ্চা একটু অসুস্থ হলে উক্ত বিদ্যালয়ের শিক্ষক আমিনুল ইসলাম বাব, আমার নির্দেশে দ্রুত ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ডাক্তার দেখায়, ও করোনা অন্টিজেন পরীক্ষায় আলহামদুলিল্লাহ বাচ্চাটির নেগেটিভ আসে। সব বিদ্যালয়েই উৎসবমূখর পরিবেশ বিরাজ করছে। শিক্ষার্থীদের পদচারণায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো যেন প্রাণ ফিরে পেয়েছে।