আ’লীগের প্রতিশ্রুত ইশতেহারের আরেকটি বাস্তবায়ন

4

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আরও একটি প্রতিশ্রুত ইশতেহার চলতি মুজিববর্ষে পূরণ হলো। গৃহহীনদের আবাসন সুবিধা প্রদানের লক্ষ্যে “কেউ থাকবে না গৃহহীন” শীর্ষক ইশতেহারটির মধ্যে রাজধানীর মিরপুর-১১ নং সেকশনের ‘বাউনিয়া বাঁধ বাস্তুহারা পুর্নবাসন প্রকল্প’টি উল্লেখযোগ্য; যার বাস্তবায়নে সেখানকার ২৬শত পরিবারের মাঝে প্রকল্পের দলিল হস্তান্তর করেছে জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ। রোববার (১৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ইং) গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ, এমপি’র উপস্থিতিতে উক্ত প্রকল্পের দলিল হস্তান্তর অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা-১৬ আসনের তিন তিনবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাহ্। এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ শহীদ উল্লা খন্দকার। অনুষ্ঠানটির সভাপতিত্ব করেন জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মোঃ দেলওয়ার হায়দার।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা-১৬ এর আওতাধীন ডিএনসিসি’র কাউন্সিলরগণ এবং স্থানীয় আওয়ামী নেতাকর্মীবৃন্দ। অনুষ্ঠানে জানানো হয়, সরকারের পক্ষ থেকে প্রতিটি গ্রামকে শহরে উন্নীত করার যে কর্মসূচি গ্রহন করা হয়েছে তারই বাস্তবায়নের একটি অন্যতম দৃশ্যমান সফল প্রকল্প হলো এই ২৬শত গৃহহীন পরিবারের আবাসন সুবিধা প্রদান তথা তাদের জন্য সরকারের পক্ষ হতে বরাদ্দ প্লটের এই দলিল প্রদান, পর্যায়ক্রমে যা গোটা দেশে বাস্তবায়িত হবে। প্রধান অতিথি আলহাজ্ব ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাহ্ এমপি জানান, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান না থাকলে আজ এই বাংলাদেশ হতো না। তিনিই এই স্বাধীন দেশটি আমাদের উপহার দিয়েছেন আর সাথে দিয়েছেন দেশটিকে গড়ার সুপরিকল্পনা।

সেই পরিকল্পনার ফসল হলো আজকের এই বাস্তুহারা পুর্নবাসন প্রকল্পের বাস্তবায়ন। আর এভাবেই বঙ্গবন্ধুর সকল স্বপ্ন বাস্তবায়ন করেই আমরা এই মহান নেতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে সক্ষম হবো ইনশাল্লাহ্। আমি সরকারের কাছে অনুরোধসূচক প্রস্তাবনা রাখছি, বাস্তবায়িত এই প্রকল্পটি ভবিষ্যতে যেন ‘বাউনিয়া বাঁধ বাস্তুহারা প্রকল্প এলাকা’ এর পরিবর্তে ‘বাউনিয়া বাঁধ আবাসিক এলাকা প্রকল্প’ হিসেবে অভিহিত হয়। তার এই প্রস্তাবে শ্রদ্ধার সাথে সহমত পোষণ করে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ, এমপি বলেন, বিষয়টির সার্বিক বিবেচনা ও বাস্তবায়নে আমরা অত্যন্ত আন্তরিকভাবে কাজ করে যাবো। প্লটের দলিল গ্রহীতাগণ জানান যে তারা অত্যন্ত আনন্দিত এবং উচ্ছাসিত। তাদের স্বপ্ন পূরণ করায় তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট চিরকৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ কর্তৃক ইতোমধ্যেই দেশের ১৯টি জেলা ও ৩টি উপজেলায় ২০টি প্লট উন্নয়ন প্রকল্প ও ১০টি ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্পসহ মোট ৩০টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে। এসব প্রকল্পে ৪৮৯২টি আবাসিক প্লট এবং ১৭২৯টি আবাসিক ফ্ল্যাট নির্মাণ করা হয়েছে। বাস্তবায়িত এসব প্রকল্পে ৩৩ হাজার ১শত ৫টি পরিবারের জন্য পরিকল্পিত আবাসনের ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়াও বর্তমানে ২০টি প্লট উন্নয়ন প্রকল্প ও ১৬টি ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্প এবং অন্যান্য প্রকল্পসহ মোট ৩৯টি প্রকল্পে ৩হাজার ১শত ৭১টি আবাসিক প্লট এবং ৭হাজার ৬শত ৪৫টি আবাসিক ফ্ল্যাট নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। সংস্থাটির ১৮টি প্লট উন্নয়ন প্রকল্প এবং ১৯টি ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্পসহ মোট ৪১টি প্রকল্প অনুমোদনের জন্য প্রক্রিয়াধীন রয়েছে যা বাস্তবায়ন করা হলে প্রায় ৪০হাজার পরিবারের আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিত হবে।