মহেশপুরে শিশু নিলয় ফাউন্ডেশনের প্রকল্প পরিচিতিমূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

149
এস. এম. শফিক, যশোর (৭১৮) প্রতিনিধি:
ঝিনাইদহের মহেশপুরে শিশু নিলয় ফাউন্ডেশন কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন সাসটেইনেবল এন্টারপ্রাইজ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচিতিমূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ ০৭ ডিসেম্বর উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। “Promoting Environment Friendly Enterprise Through Quality Production and Marketing of Imitation Jewelry” শিরোনামে অনুষ্ঠিত উক্ত কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন শিশু নিলয় ফাউন্ডেশন এর পরিচালক (মাইক্রোফিনান্স) জনাব মোঃ জাহাঙ্গীর আলম। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব শাশ্বতী শীল।
সভাপতি তার সূচনা বক্তব্যের মাধ্যমে শিশু নিলয় ফাউন্ডেশনের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড যেমন- ঋণ কার্যক্রম, মৎস্য ও কৃষি ইউনিট, শিক্ষা, কৈশোর কর্মসূচি, প্রবীণ কর্মসূচি, Domestic Violence সহ অন্যান্য কর্মসূচি সংক্ষিপ্তসারে তুলে ধরেন। সংস্থার উপ-পরিচালক (মাইক্রোফিনান্স) ও প্রকল্পের ফোকাল পার্সন জনাব মোঃ ইমামুল হোসেন এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত উক্ত কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা কৃষি অফিসার জনাব মোঃ হাসান আলী, উপজেলা মৎস্য অফিসার জনাব মোঃ আলমগীর হোসেন, উপজেলা সমাজসেবা অফিসার জনাব মোঃ জুলফিকার আলী, উপজেলা মহিলা বিষয়ক অফিসার জনাব মোঃ সাইফুল ইসলাম, অফিসার ইনচার্জ জনাব মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, মহেশপুর পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর জবাব মোহাম্মদ সোহাগ খান।
প্রধান অতিথি জনাব শাশ্বতী শীল বলেন, ইমিটেশন জুয়েলারি শিল্প একটি সম্ভাবনাময় শিল্পে পরিণত হয়েছে তাই এই শিল্পের বিকাশ আরো বেশি ত্বরান্বিত করার পাশাপাশি নতুন নতুন উদ্যোক্তা তৈরি ও মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে। বাজারজাতকরণের জন্য প্রস্তুত ইমিটেশন জুয়েলারি পন্যের পরিবহনের ক্ষেত্রে হয়রানি রোধে উদ্যোক্তা শরিফুল ইসলাম স্বপনের এক প্রশ্নের জবাবে প্রধান অতিথি বলেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে পণ্য পরিবহনে হয়রানি রোধে সার্বিক সহযোগিতা করা হবে পাশাপাশি ইমিটেশন শিল্পের ব্যবসায়ী সমিতি তৈরীর ব্যাপারেও গুরুত্বারোপ করেন তিনি। এছাড়া শিশু নিলয় ফাউন্ডেশন এর বিভিন্ন কর্মকাণ্ড সম্পর্কে জেনে সন্তোষ প্রকাশ করেন এই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।
প্রকল্পের ফোকাল পার্সন জনাব মোঃ ইমামুল হোসেন বলেন, শিশু নিলয় ফাউন্ডেশন কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন চলমান “ইমিটেশন জুয়েলারি উৎপাদন ও বাজারজাতকরণের মাধ্যমে উদ্যোক্তাদের আয় বৃদ্ধিকরন ও কর্মসংস্থান সৃষ্টি” শীর্ষক ভ্যালু চেইন উন্নয়ন উপ-প্রকল্প সুন্দরভাবে বাস্তবায়িত হচ্ছে। যার ফলশ্রুতিতে ব্যক্তিগত ও কারখানা পর্যায়ে পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রেখে স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে শ্রমিকরা যেন কাজ করতে পারে সে লক্ষ্যে এ প্রকল্পের যাত্রা শুরু। মূলতঃ ইমিটেশন শিল্পে কর্মরত সকল পর্যায়ের শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করার পাশাপাশি পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর নয় এমন কর্মপরিবেশ তৈরি নিশ্চিত করা।
দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত এ পরিচিতিমূলক কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সাসটেইনেবল এন্টারপ্রাইজ প্রকল্পের প্রকল্প ব্যবস্থাপক জনাব ফায়সাল মাহমুদ জোয়ার্দার। সংস্থার পক্ষে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এরিয়া ইন-চার্জ (মাইক্রোফিনান্স) জনাব মোঃ খাইরুল বাশার, জনাব মোঃ সামাউল হোসেন, জনাব মোঃ শাহ জামাল, ভিসিএফ জনাব এস. এম. শফিকুল ইসলাম, শাখা ব্যবস্থাপক জনাব মোঃ শরিফুল ইসলাম, জনাব মোঃ কামরুজ্জামান, জনাব এ এম মাহবুবুর রহমান। এছাড়া অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মোঃ জাকির হাসান, ফাহদ আহমেদ, মোস্তফা মহসীন ও মোঃ আবু হাসান।
উল্লেখ্য যে, বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে ও পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) এর কারিগরি সহযোগিতায় বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা শিশু নিলয় ফাউন্ডেশন সাসটেইনেবল এন্টারপ্রাইজ প্রজেক্ট বাস্তবায়ন করছে। কর্মশালায় ইমিটেশন জুয়েলারি কারখানার মালিক, কারিগর, উদ্যোক্তা, নারী উদ্যোক্তা, পাইকারি ব্যবসায়ী সহ এই শিল্পে জড়িত বিভিন্ন শ্রেণীর ৩৫ জন অংশগ্রহণ করে।